মঙ্গলবার, ১৮ মে, 2০২1
খুনিদের ফাঁসি কার্যকর যেন দেখে যেতে পারি: নুসরাতের মা
Published : Saturday, 10 April, 2021 at 8:48 AM

ফেনী প্রতিনিধি
ফেনীর সোনাগাজীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহানের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন লাগিয়ে দেওয়ার ঘটনার পর মর্মান্তিক মৃত্যুর দুই বছর আগামীকাল শনিবার। আলোচিত এ হত্যাকাণ্ডে বাকরুদ্ধ দেশবাসী, যে খবর স্থান পেয়েছে বিশ্ব মিডিয়ায়। হত্যাকাণ্ডের দুই বছর পূর্ণ হয়ে গেছে, এ নিয়ে মিডিয়া পাড়া এখন এতটা সরগরম না থাকলেও পরিবারে কাটেনি শোকের আবহ। একমাত্র কন্যা সন্তানকে হারিয়ে ভেঙে পড়েছেন মা। দেখা দিয়েছে নানা অসুস্থতা, ভুগছেন কিডনি ও হার্টের সমস্যায়। ঢাকা থেকে চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরেছেন কয়েকদিন আগে।

হত্যাকাণ্ডের দুই বছরে বিচার নিয়ে প্রত্যাশা আর প্রাপ্তি নিয়ে জানতে চাইলে নুসরাতের মা শিরিন আক্তার বলেন, ‘দুই বছর হয়ে গেছে কলিজার ধন একমাত্র মেয়ের নির্মম হত্যাকাণ্ডের। মেয়ের শোকে অসুস্থ হয়ে ভয় হচ্ছে কখন মরে যাই। মৃত্যুর আগে সরকারের কাছে দাবি, খুনিদের ফাঁসি কার্যকর হয়েছে যেন দেখে যেতে পারি।’ মামলার যে অগ্রগতি সে জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও সাংবাদিকদের সহযোগিতার জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে শেষ পর্যন্ত পাশা থাকার অনুরোধ জানান।

এদিকে নুসরাত হত্যাকাণ্ডের দুই বছর পূর্ণ হলেও কবর সংরক্ষণে নেওয়া হয়নি কোনো ব্যাবস্থা। ফেনী -২ আসনের সংসদ সদস্য নিজাম উদ্দিন হাজারী ঘোষিত কবর পাকাকরণ, নুসরাতের নামে ভবন ও রাস্তা নির্মাণেরও কোনো অগ্রগতি নেই। যার ফলে হতাশা ব্যক্ত করেছেন নুসরাতের পরিবার ও এলাকাবাসী। নুসরাতের বড় ভাই নোমান জানান, বিচার কার্যক্রমে তারা সন্তুষ্ট। বিচারাধীন বিষয়ে এ মূহূর্তে কোনো মন্তব্য করতে অপারগতা জানান, সেই সঙ্গে তাদেরকে পুলিশ পাহারায় নিরাপত্তা প্রদান করায় সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে পুলিশ পাহারার ব্যবস্থা অব্যাহত রাখতে সরকারের প্রতি অনুরোধ জানান। এছাড়া মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আজ শুক্রবার বাড়িতে কোরআন খতম ও দোয়ার আয়োজন করা হচ্ছে বলে জানান।

২০১৯ সালের ৬ এপ্রিল মাদ্রাসার প্রশাসনিক ভবনের ছাদে নিয়ে সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসা পরীক্ষাকেন্দ্রে নুসরাত জাহানের গায়ে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। ২০১৯ সালের ২৪ অক্টোবর ফেনীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মামুনুর রশিদ মামলার রায়ে ১৬ আসামিকে মৃত্যুদণ্ড দেন। পাশাপাশি প্রত্যেক আসামিকে এক লাখ টাকা করে অর্থদণ্ড করা হয়।

২০১৯ সালে ২৭ মার্চ সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলা নিজ কক্ষে ডেকে নিয়ে নুসরাতের শ্লীলতাহানি করেন। এ ঘটনায় তার মা শিরিনা আক্তার বাদী হয়ে সোনাগাজী মডেল থানায় মামলা করলে পুলিশ অধ্যক্ষকে গ্রেপ্তার করে। মামলা তুলে না নেওয়ায় ৬ এপ্রিল নুসরাতের হাত-পা বেঁধে গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন লাগিয়ে দেন বোরকা পরা পাঁচজন। ৮ এপ্রিল তার ভাই মাহমুদুল হাসান নোমান আটজনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাতনামা আরও কয়েকজনকে আসামি করে থানায় মামলা করেন।

 মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী শাহ জাহান বলেন, ‘২০১৯ সালের ২৯ অক্টোবর আসামিদের মৃত্যুদণ্ডাদেশ অনুমোদনের জন্য (ডেথ রেফারেন্স) মামলার যাবতীয় কার্যক্রম হাইকোর্টে পৌঁছে। আপিল অগ্রাধিকার ভিত্তিতে শুনানির জন্য বেঞ্চ নির্ধারণ করেন প্রধান বিচারপতি। কিন্তু করোনা পরিস্থিতির কারণে শুনানি শুরু হতে দেরি হওয়ায় ওই বেঞ্চ বাতিল হয়ে গেছে। তিনি আশা প্রকাশ করে জানান, করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে আবার বেঞ্চ গঠন করে মামলার শুনানি শুরু হবে।


সম্পাদক : জয়নাল হাজারী।  ফোন : ০২-৯১২২৬৪৯
মোঃ ইব্রাহিম পাটোয়ারী কর্তৃক ফ্যাট নং- এস-১, জেএমসি টাওয়ার, বাড়ি নং-১৮, রোড নং-১৩ (নতুন), সোবহানবাগ, ধানমন্ডি, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
এবং সিটি প্রেস, ইত্তেফাক ভবন, ১/আর কে মিশন রোড, ঢাকা-১২০৩ থেকে মুদ্রিত।
আবু রায়হান (বার্তা সম্পাদক) মোবাইল : ০১৯৬০৪৯৫৯৭০ মোবাইল : ০১৯২৮-১৯১২৯১। মো: জসিম উদ্দিন (চীফ রিপোর্টার) মোবাইল : ০১৭২৪১২৭৫১৬।
বার্তা বিভাগ: ৯১২২৪৬৯, বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন: ০১৯৭৬৭০৯৯৭০ ই-মেইল : [email protected], Web : www.hazarikapratidin.com
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি