শুক্রবার, ০৫ জুন, ২০২০
পাপিয়া এখনো হুঙ্কার ছাড়ছে
Published : Saturday, 29 February, 2020 at 8:26 PM

স্টাফ রিপোর্টার ॥
মক্ষিরাণী পাপিয়া বর্তমানে রিমান্ডে আছে। রিমান্ডে তাঁকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদের মধ্যেই সে মাঝে মধ্যে হুঙ্কার দিচ্ছে। কখনো বলছে আমি দোষী নই, আমি ষড়যন্ত্রের শিকার, আবার কখনো বলছে আমি কাউকে ছাড় দিব না। সকল রথি-মহারথীর সকল অপকর্ম ফাঁস করে দিব। তথ্য হাতে নিয়েই তাঁকে যতকথা জিজ্ঞেস বা প্রশ্ন করা হচ্ছে সবই সে অস্বীকার করছে। কারও কাছ থেকে ব্লাকমেইল করার কথা বলতেই সে উত্তেজিত হয়ে উঠে। তাঁকে যখন জিজ্ঞেস করা হয়েছিল আপনি বিভিন্ন যুবতী মেয়েদের যৌনকর্মে বাধ্য করেছেন, সেইসব মেয়েরা কিভাবে বাধ্য করা হয়েছিল সেসব কথা আমাদেরকে অকপটে বলে যাচ্ছে। পাপিয়া বলছে একটাও সত্য নয়।

সবই মিথ্যে। পাপিয়া বলছিল পাপ আচারে ডুবে আছে ঢাকা শহরে এমন নারী কয়েকশত আছে। শুধু আমি বিপদে পড়ায় মিডিয়া বানিয়ে-বানিয়ে আমার কথাই বলে যাচ্ছে। আসল ঘটনা নরসিংদির অভ্যন্তরিণ কোন্দল।  অভ্যন্তরিণ কোন্দলের ফলে প্রকাশ্য দিবালকে একজন মেয়র খুন হয়েছে। তারপর থেকেই সেখানে বিবদমান দুটি পক্ষ একে অপরের বিপক্ষে লেগেই আছে। তারই ফলশ্রুতিতে আজকে আমাকে ফাঁসিয়ে দেয়া হয়েছে। তবে আমাকে ফাঁসিয়ে শেষ করা যাবে  না। আমি সকল ষড়যন্ত্র উপেক্ষা করে অবশ্যই মুক্ত হয়ে আবার স্ব-সম্মানে নেতৃত্ব করবো। জিজ্ঞাসাবাদের সময় হঠাৎ-হঠাৎ পাপিয়া খুবই উত্তেজিত হয়ে পড়ে। সব চাইতে বড় সমস্যা হচ্ছে অধিকাংশ সময় অসুস্থতার ভান করছে। গোয়েন্দারা আশা করছে দুই একদিনের মধ্যেই সে কাহিল হয়ে পড়বে এবং সকল সত্য ঘটনা ফাঁস করে দিবে। ধারণা করা হচ্ছে ওয়েস্টিন হোটেলের কর্তৃপক্ষ পাপিয়ার রিমান্ড শেষ করার আগেই তাকে জেলে পাঠাতে চাইছে। কিন্তু আভাস পাওয়া যাচ্ছে জননেত্রী শেখ হাসিনা পাপিয়ার ঘটনাসমূহের ব্যাপারে খুবই কঠোর অবস্থানে রয়েছেন।

সুতরাং ধারণা করা হচ্ছে পাপিয়ার সঙ্গে এমন সব ব্যক্তি জড়িয়ে যাবেন যা এখনো কেউ কল্পনাও করতে পারছেন না। ১৭ই মার্চ পর্যন্ত অপেক্ষা করলেও ১৭ই মার্চের পরপরই পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করবে বলে মনে করা হচ্ছে। ১৭ই মার্চের আগে মন্ত্রীসভাও পূর্ণগঠিত হবে বলে মনে হয় না। এসব অনুমান নির্ভর কথা। নেত্রী কখন কি করবেন তা আর কেউ জানেন না। এদিকে  ফেনীর কুসুমবাগের প্রশ্নে সে বলছে সে কখনো ফেনীতেই যায়নি। অথচ আরমানের সঙ্গে বাবুলের সঙ্গে তার কুমুমবাগে অসংখ্য ছবি আছে। ভিডিওতেও তাকে নাচা-নাচি করতে দেখা যাচ্ছে। কুসুমবাগের মালিক বিপুল পরিমাণ টাকা খরচ করে নিজেকে বাঁচাতে সচেষ্ট আছে। অবশ্য কুসুমবাগের মালিক বাবুলকে রিমান্ডে নিলেও সেখানকার অপরাধ জগতের অনেক কিছুই খোলাসা হয়ে যাবে। কুসুমবাগের মালিক বাবুল লতিফ ভূইয়ার ৩২ ডিসিমেল জায়গা জোরপূর্বক বেদখল করেছে এবং কুসুমবাগের যে পুকুরটি তাঁর বাগান বাড়ির ভিতরে অন্তরভূক্ত রয়েছে সেটিও এই লতিফ ভূইয়ার জায়গা। কিন্তু সিন্ডিকেটকে হাত করে বাবুল এসব দখলবাজি করেছে। এসব ব্যাপারে অবশ্যই প্রসাশনের হস্তক্ষেপ প্রয়োজন।



সম্পাদক : জয়নাল হাজারী।  ফোন : ০২-৯১২২৬৪৯
মোঃ ইব্রাহিম পাটোয়ারী কর্তৃক ফ্যাট নং- এস-১, জেএমসি টাওয়ার, বাড়ি নং-১৮, রোড নং-১৩ (নতুন), সোবহানবাগ, ধানমন্ডি, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
এবং সিটি প্রেস, ইত্তেফাক ভবন, ১/আর কে মিশন রোড, ঢাকা-১২০৩ থেকে মুদ্রিত।
আবু রায়হান (বার্তা সম্পাদক) মোবাইল : ০১৯৬০৪৯৫৯৭০ মোবাইল : ০১৯২৮-১৯১২৯১। মো: জসিম উদ্দিন (চীফ রিপোর্টার) মোবাইল : ০১৭২৪১২৭৫১৬।
বার্তা বিভাগ: ৯১২২৪৬৯, বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন: ০১৯৭৬৭০৯৯৭০ ই-মেইল : [email protected], Web : www.hazarikapratidin.com
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি