শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর, ২০১৯
৫ই মে ফেসবুকে দেয়া হাজারীর লাইভ ভাষণ
Published : Tuesday, 7 May, 2019 at 12:39 PM, Update: 07.05.2019 7:35:45 PM

৫ই মে ফেসবুকে দেয়া হাজারীর লাইভ ভাষণস্টাফ রিপোর্টার ॥
সাবেক সংসদ সদস্য জয়নাল হাজারী গত ৫ই মে তার মাসিক ফেসবুক ভাষনের শুরুতেই বলেন ফণীর আঘাতে এবারে ক্ষয়-ক্ষতির পরিমান অনেকটাই কম হওয়াতে তিনি আল্লাহর দরবারে শুকরিয়া আদায় করেন। তবে যে ১৮জন মানুষের মৃত্যু হয়েছে তাদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন। যে সমস্ত গবির মানুষের ঘরবাড়ি ধ্বংস হয়েছে দ্রুত সেগুলি মেরামত করে তাদেরকে দ্রুততম সময়ে পুর্ণবাসিত করার আবেদন জানান সরকারের কাছে।

দুই দিন পরেই পবিত্র রমজান। তিনি সকলকে রমজানের শুভেচ্ছা জানিয়ে এর পবিত্রতা রক্ষার আহবান জানান। তিনি বলেন আমি ক্ষমতায় থাকতে বা আমার রাজনৈতিক জীবনে কোন রমজান মাসে আমি রাজনৈতিক কিংবা অন্যকোন কর্মকান্ড চালাতাম না। মিটিং মিছিল বা সভা-সমিতি সবই স্থগিত থাকত। কেবল ইফতার পার্টির অনুমতি ছিল। তবে সেটি চাঁদা তুলে করতে দেয়া হতো না।

কৌতুক অভিনেতা আনিস মামার মৃত্যুতে তিনি গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেন। তার স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে হাজারী বলেন বাংলা ১৪০০ সাল থেকে মাষ্টার পাড়ায় যে বৈশাখী মেলা অনুষ্ঠিত হয়েছিল এর প্রথমটি তিনি উদ্বোধন করেছিলেন এবং পরবর্তীগুলোতে নিয়মিত অংশ নিতেন। হাজারী বলেন আমি ১৯৭৪ সালে ফেনী জেলা যুবলীগের সম্মেলন করেছিলাম মহাসমারোহে এই অনুষ্ঠানটির একটি ফ্লিম তৈরি করেছিলাম। এটি পরবর্তী সময়ে বিভিন্ন প্রেক্ষাগৃহে প্রদর্শীত হয়েছিল। এটি আনিস মামার উদ্দ্যেগেই হয়েছিল। হাজারী বলেন আমার স্মৃতিতে আনিস মামা চিরদিন অম্লান থাকবেন।
এই সময়ে তোফায়েল আহমেদ অসুস্থ হয়ে স্কোয়ার হসপিটালে ভর্তি আছেন। হাজারী দ্রুততার আরোগ্য লাভের জন্য সকলকে দোয়া করতে বলেন।
এক পর্যায়ে হাজারী মালয়েশিয়ার একটি দুঃখজনক বিষয়ের অবতারণা করেন। তিনি বলেন কিছুদিন থেকে বৈধ ভিসা নিয়ে মালয়েশিয়া গেলেও বিমানবন্দর থেকে অনেকটা বিনা কারণে মানুষ জনকে ফেরত পাঠানো হয়। মালয়েশিয়া পৌছার পর ইমেগ্রেশন অনেককে ডেকে নিয়ে বিভিন্ন ধরনের জিজ্ঞাসাবাদ করেন। তারপর কিছুলোককে আবার ফেরত পাঠিয়ে দেন। হাজারীর প্রশ্ন হচ্ছে, যদি কাউকে মালয়েশিয়ায় ঢুকতে দিতে না চাও তাহলে তাকে ভিসা দিও না। এটা মেনে নেয়া যায় কিন্তু ভিসা দিয়ে মালয়েশিয়া যাওয়ার পর সঙ্গে সঙ্গে ফেরত পাঠিয়ে দেয়া এটা অমানুবিক। এ ব্যাপারে দ্বিপাক্ষিক আলোচনার মাধ্যমে বিষয়টি সুরাহা করার জন্য তিনি প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রীকে ও বিদেশ মন্ত্রীকে অনুরোধ করেন। প্রবাসীদের ব্যাপারে জোরালো ভূমিকা রাখার জন্য তিনি নিক্সনকে বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানান।

নুসরাত হত্যা প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে হাজারী বলেন আমি আশাকরি নুসরাত হত্যাকারীরা কেহই রক্ষা পাবে না এবং দ্রুততম সময়ের এদের বিচার ও শাস্তি নিশ্চিত হবে। নুসরাত হত্যার ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর কঠোর ভূমিকার জন্য তাকে ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন তবে অনেকেই কিছু কিছু দোষী ব্যক্তিকে বাঁচানোর জন্য আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তিনি বলেন চেষ্টা চালালেও কোন লাভ হবে  না।তবে যদি কোন অপরাধী ছাড়া পায় তবে সমগ্র ফেনীজেলা উত্তল হয়ে উঠবে। এগিকে ওসিকে সরানো হয়েছে। ওসির প্রধান অপরাধ ছিল সে ঘটনাটিকে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দিতে চেয়েছিল। এই মামলার আসামি রুহুলআমিনের পরামর্শেই ওসি এটা বলেছিল। আর রুহুলআমিনকে টেলিফোনে অন্য একজন এটি শিখিয়ে দিয়েছিলেন। রুহুলআমিনের টেলিফোন কল লিস্ট থেকে অনেক নতুন তথ্য বেরিয়ে এসেছে। যা এখনি পিবিআই প্রকাশ করতে চাইছে না। প্রশ্ন হচ্ছে, অর্থলেনদেনসহ অন্যভাবে যারা জড়িত এদের ব্যাপারটা খানিকটা খাটোভাবে দেখা হচ্ছে বলে মনে হয়। এটা ঠিক হবে না। সকল জড়িত ব্যক্তিকেই আইনের আওতায় আনতে হবে। কে এই রুহল আমিন? কিভাবে সে সোনাগাজী থানা আ.লীগের সভাপতি হলো। এসব প্রশ্ন করে হাজারী বলেন এই রুহুল আমিন জাতীয় পার্টির নেতা ছিল। তার পরিবারে কোন আ.লীগের লোক নেই। সে রুহুল আমিন সোনাগাজীর হর্তাকর্তা বিধাতা বনে গিয়েছিল। তার বাইরে সোনাগাজীতে কিছুই হয় না। প্রশাসন,জনগণ সবই তার অঙ্গুলি হেলনে চলতো। তার প্রধান শক্তি ছিল ফেনীর সেন্ডিকেট নেতা।
আমি ফেসবুকে স্টাটাস দিয়ে বলেছিলাম সেন্ডিকেট নেতা এই সময়ে সিঙ্গাপুর পড়ে আছে কেন? এর সঠিক জবাব দিতে পারলে তাকে পুরস্কৃত করা হবে। শতশত লোক আমার কমেন্ট বক্সে উত্তর দিতে গিয়ে বলেছে তেল মালিশ করতে। উত্তরটি আংশিক সত্য। তবে তার স্ত্রী এখনো অসুস্থ এবং সিঙ্গাপুরেই থাকে। সুতরাং তাকে সঙ্গ দেয়ার একটি দায়িত্ব ও স্বামী হিসেবে তার রয়েছে। পড়ে থাকার একটা কারণ এটাকেও ধরা হচ্ছে।

ফরহাদ ও ইফতেখার নামে দুই সন্ত্রাসী আবারো সক্রিয় হয়ে উঠেছে। রুহুল আমিনের চামচা দুটি এখনো আগের মতই তাদের সন্ত্রাসী কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে। কয়েকদিন আগে তারা একটি মৎস্য খামারে হামলা চালিয়ে ২০লক্ষ টাকা দাবি করেছে। মৎস্য খামারটি সোনাগাজীর প্রকল্প এলাকায় এবং ৫২একর জমির উপর প্রতিষ্ঠিত। প্রথম দিকে থানা এব্যাপারে মামলা নিতে চায়নি। তবে চাপে পড়ে এখন মামলা নিয়েছে। এই দুই সন্ত্রাসী একটি যুবতী মেয়েকে সঙ্গে নিয়ে ফেন্সিডিল ইয়াবা ও মদ খাওয়ার দৃশ্য সর্বত্র ফেসবুকের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছিল। সেই সময়ে ওরা ফেনীর পূর্ব উকিল পাড়ায় পালিয়ে ছিল। কিন্তু কিছুদিন যেতে না যেতেই রুহুল আমিন তাদেরকে সোনাগাজীতে নিয়ে আসে এবং তার অপকর্মে ব্যবহার করতে থাকে। হাজারী বলেন এদেরকে আর ছাড় দেয়ার সুযোগ নেই। তাই তিনি সোনাগাজীর সংসদ ও উপজেলা চেয়ারম্যান লিপ্টনকে বিষয়টি কঠিনভাবে নিষ্পত্তি করার অনুরোধ জানান। সন্ত্রাসীদের ভয় করা জনপ্রতিনিধিদের উচিত নয়।

সম্প্রতি সুফিয়ানের নবনির্মিত মার্কেটে তালা দেয়া হয়েছে। বলা হচ্ছে সুফিয়ানের কাছে কয়েক কোটি টাকা পাওনা আছে সেন্ডিকেট। এ ব্যাপারে বিভিন্ন রকমের কথা চালু রয়েছে। এই সুফিয়ান বিগত ৫ বছর সেন্ডিকেটের সেবা করেছে। এখন কোথায় কি জটিলতা তা পরিষ্কার নয়। তবে অতিরিক্ত দালালির পুরস্কার সুফিয়ানকে পেতেই হবে।

সব শেষে হাজারী ফেনীর রাজনীতির ভবিষ্যত নিয়ে কিছু কথা বলেন। তিনি বলেন ফেনীর রাজনীতিতে পরিবর্তনের আভাস আছে। তিনি বলেন খুব সহসাই জেলা সভাপতির পরিবর্তন হবে। জেলা সভাপতি সাধারণ সম্পাদককে সব সময় আমার নেতা বলে। এটা ৮৪ বছর বয়সের একজন প্রবীণ নেতা কি করে বলতে পারে। এটা কারো বোধগম্য নয়। বিষয়টি নিয়ে আলাউদ্দিন নাসিমও বর্তিত সভায় আলোচনা করেছেন। রহমান বিকমের নেতা তাকে নমিনেশন থেকে বঞ্চিত করেছিল। পরে নেত্রীর হস্তক্ষেপে সুরাহা হয়। চতুরদিকে আলোচনা আছে কোন এমপি আর কোন কমিটিতে সভাপতি বা সাধারণ সম্পাদকের পদে থাকতে পারবে না। এই বিষয়টি সত্য হলো নতুন একজন সাধারণ সম্পাদক হবে ফেনীতে। ঘোষণা করা হয়েছে যারা বঙ্গবন্ধু হত্যার পর প্রতিরোধ আন্দোলন করেছে এবং জননেত্রী কারাগারে থাকাকালে ভূমিকা রেখেছে এবং বিরোধীদল থাকাকালে বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামে ভূমিকা রেখেছে তাদেরকে পুরস্কৃত করা হবে। এই প্রসঙ্গে হাজারী বলেন উদ্দ্যেগটি খুবই প্রশংসনিয়। তবে আমার আর কোন পুরস্কার নেয়ার শক্তি নেই।

সব শেষে তিনি বলেন- আমার গত ভাষণের বিউআর হয়েছিল ২লক্ষ ৯০ হাজারেরও বেশি। তিনি বলেন এটি একটি ঐতিহাসিক ঘটনা এবং একজন অতি নগন্য নাগরিক হিসেবে এটাকে বিশাল সাফল্য হিসেবে বর্ণনা করেন। প্রায় তিন লক্ষ মানুষ সরাসরি এটা দেখেছে একজনের সঙ্গে চারজনও যদি দেখে থাকে তবে এর দর্শকস্রোতা ১২ লক্ষেরও উপরে। তিনি ওই সকল দর্শকস্রোতাকে অভিনন্দন জানিয়ে তার বক্তব্য শেষ করেন।



সম্পাদক : জয়নাল হাজারী।  ফোন : ০২-৯১২২৬৪৯
মোঃ ইব্রাহিম পাটোয়ারী কর্তৃক ফ্যাট নং- এস-১, জেএমসি টাওয়ার, বাড়ি নং-১৮, রোড নং-১৩ (নতুন), সোবহানবাগ, ধানমন্ডি, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
এবং সিটি প্রেস, ইত্তেফাক ভবন, ১/আর কে মিশন রোড, ঢাকা-১২০৩ থেকে মুদ্রিত।
আবু রায়হান (বার্তা সম্পাদক) মোবাইল : ০১৯৬০৪৯৫৯৭০ মোবাইল : ০১৯২৮-১৯১২৯১। মো: জসিম উদ্দিন (চীফ রিপোর্টার) মোবাইল : ০১৭২৪১২৭৫১৬।
বার্তা বিভাগ: ৯১২২৪৬৯, বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন: ০১৯৭৬৭০৯৯৭০ ই-মেইল : [email protected], Web : www.hazarikapratidin.com
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি