মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
হাজারীর ১৫ই মার্চের ভাষণ
Published : Sunday, 17 March, 2019 at 7:10 PM

হাজারীর ১৫ই মার্চের ভাষণস্টাফ রিপোর্টার ॥
জয়নাল হাজারী ১৫ই মার্চ সন্ধ্যা সাতটায় তার ফেসবুক পেইজ থেকে লাইভ ভাষণ দিয়েছেন। এই ভাষণের শুরুতেই তিনি ওবায়দুল কাদেরের অসুস্থ হওয়ার জন্য সমবেদনা জ্ঞাপন করেন এবং তার আশু রোগ মুক্তি কামনা করেন। হাজারী বলেন- ওবায়দুল কাদের চট্টগ্রাম গেলে কিংবা নোয়াখালি-কুমিল্লাতে গেলে রাতে সেখানে থাকতো না। ফেনীর সার্কেট হাউজে চলে আসতো। ফলে ফেনীর অতি সাধারণ কর্মীদের সঙ্গেও তার একটি নিবীড় সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল। সেই কারণে ফেনীর নেতাকর্মীরাও ওবায়দুল কাদেরের প্রতি আন্তরিক। সেই কারণেই ফেনীর দলীয় নেতাকর্মীরা ওবায়দুল কাদেরের অসুস্থা মর্মাহত।

কয়েকদিন আগে হাজারীর ফেসবুক একাউন্ট ব্লক করা হয়েছে। যাদের ষড়যন্ত্রে এটি ব্লক হয়েছে। তিনি তাদের কঠোর সমালোচনা করেন। তিনি তাদের প্রতি নিন্দা ও ঘৃনা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন আমার একাউন্টটিতে এক লক্ষ পচিশ হাজারেরও বেশি ফলোয়ার রয়েছে এবং এই আইডি থেকেই ২০১৬ সালের ২রা সেপ্টেম্বর থেকে একটানা ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত প্রতি মাসে একবার লাইভ ভাষণ দিয়েছি। আমার এই একাউন্ট থেকে কখনোই ক্ষতিকর কোন পোষ্ট দেয়া হয়নি। ফেসবুক কতৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ চালাচ্ছি, আশা করি সব ঠিক হয়ে যাবে। তবে এ মাসের ভাষণটি বাধ্য হয়ে আমার পেইজ থেকে দিতে হচ্ছে।

এরপর তিনি বলেন এবারে একুশে ফেব্রুয়ারিতে ফেনীতে কিছু সাংবাদিক, কিছু বুদ্ধিজীবি অনেক কিছু আলোচনা করেছেন। এতে শহীদদের স্মরণে আমি যা করেছি তার কথা উল্লেখ করতে চাইনি। আমার অবদানকে ইতিহাস থেকে মুছে দেয়ার প্রয়াস পায়। অথচ কিছুদিন আগে আলাউদ্দিন নাসিমও ফেনীতে যুবলীগের একটি সমাবেশে দ্বার্থহীন কণ্ঠে বলেছিল বঙ্গবন্ধু মৃত্যুরপর সারাদেশে যে কয়জন প্রতিবাদে গর্জে উঠেছিল জয়নাল হাজারী তাদেরই একজন। পরে গণভবনে নাসিম হাজারীকে বলেন যেহেতু এটি ইতিহাস বলতেই হবে। হাজারী বলেন শহীদ সালামের নামে আমি ফেনী স্টেডিয়ামের নামকরন করেছি। সেই সময় আমি ক্রীড়ামন্ত্রণালয় সম্পর্কীত স্থায়ী কমিটির সভাপতি থাকাতে কাজটি সম্পন্ন করতে সুবিধা হয়েছিল। ছালামের গ্রামের নাম ছিল লক্ষণপুর। আমি অনেক আনুষ্ঠানিকতা শেষে চেয়ারম্যান হোসেন সাহেব ও বদীরের সহযোগীতায় ঐ গ্রামের নাম ছালাম নগর করেছিলাম। ছালামদের বাড়ির আঙ্গিনায় একটি শহীদ মিনার করেছি। সেখানেই একটি পাঠাগাড়ও করেছি। সদর রাস্তা থেকে শহীদ মিনারটির কাছে যাওয়ার জন্য সদর রাস্তা থেকে একটি রাস্তা করেছি। এদিকে ফেনীশহরে ছালাম কমিউনিটি সেন্টার আমি তৈরি করেছি। মাওলানা ওয়ায়েজ উদ্দিন যখন ভিপি আমি তখন ফেনী কলেজের নির্বাচিত জিএস। আমাদের আমলেই ফেনী কলেজের মূল ভবনের দক্ষিণ পাশে প্রথম মনোরম একটি শহীদ মিনার তৈরি করা হয়। ফেনীশহরের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারটিও আরো দৃষ্টিনন্দন করে আমি করেছিলাম। ছালামের ভাইকে প্রধানমন্ত্রীর কাছে নিয়ে গেলে তিনি তাকে আর্থিক অনুদান প্রধান করেন। আমি কয়েক বছর ধরে ছালামের পিতাকে ফেনীশহরে সংবর্ধণা দিয়েছি। তিনি প্রতি বছর ছেলের রক্তমাখা জামাটি নিয়ে শহরে আসতেন। দুভাগ্যের বিষয় এগুলি একজনও স্বীকার করেনি। তবে হাজারী বলেন ইতিহাস মোছা যাবে না।
এরপর হাজারী একরাম হত্যাকারীদের যাদের ফাঁসির আদেশ হয়েছে তাদের ফাঁসি কার্যকর করার কোন উদ্যোগ নাই দেখে দুঃখ প্রকাশ করেন। প্রধান আসামী আবিদ এখন সৌদি আরব থেকে ইটালি পারি দিয়েছে। এদের ধরারও কোন উদ্যোগ নাই।

এরপর তিনি প্রবাসীদের প্রসঙ্গে বলেন- মালয়েশিয়াতে বাঙালিরা মানবেতর জীবন-যাপন করছে। ওরা সেখানে জেলে গেলে তাদের কোন মা-বাপ থাকে না। মৃত্যুবরণ করলে লাশটা দেশে পাঠাবার ব্যবস্থা নাই। মালয়েশিয়াতে ভারত,নেপাল, মিয়ানমার, শ্রীলঙ্কা ও পাকিস্তানসহ বিভিন্ন দেশের বিপুল পরিমান লোক কাজ করে। ঐ সব দেশের নাগরিকরা বিপদে পড়লে সঙ্গে সঙ্গে ঐ সকল দেশের দূতাবাস থেকে তাদের প্রতি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়া হয় কিন্তু কেবল বিপদের সময় বাঙালিরা দূতাবাসের কোন সাহায্য সহযোগীতা পায় না। এই জন্য হাজারী সরকারের প্রতি বিশেষভাবে অনুরোধ করেছেন সরকার যেন এ ব্যাপারে দূতাবাসগুলোকে সক্রিয় করেন।

 এরপর হাজারী ফেনীঞ্চলের উপজেলা নির্বাচন নিয়ে আলোচনা করেন। তিনি বলেন আমি আগেরবারই বলেছিলাম ফেনীজেলার সব কয়টি উপজেলা চেয়ারম্যান আগের গুলোই থেকে যাবে এবং দৃশ্যত সব আগের গুলোই রয়ে যাচ্ছে। কেবল সোনাগাজীতে লিপ্টন নতুন এসেছে। তিনি লিপ্টনকে ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন লিপ্টন ও এমপি জেনারেল মাসুদ সাহেবের প্রচেষ্টায় সোনাগাজীতে পরিস্থিতি অনেক সুন্দর হবে। ফেনীসদরের ব্যাপারে তিনি বলেন রহমান বিকম জেলা আ.লীগের সভাপতি হলেও জেলা আ.লীগ তাকে নমিনেশন দেয়নি। পরে নেত্রী সরাসরি হস্তক্ষেপ করে মনোনয়ন নিশ্চিত করেছে। এইরূপ পরিস্থিতিতে হাজারী বলেন আ.লীগ নেতাকর্মীদের রহমান বিকমের বিরুদ্ধে যাওয়ার সুযোগ নেই। রহমান বিকম নিজে সরাসরি অপকর্মের সঙ্গে যুক্ত না থাকলেও খুনিদের দালালি করেছে। রহমান বিকমের সঙ্গে ভোট করে কার্যত কেউ সফল হবে বলে মনে হয় না। তিনি হালকাভাবে সকল উপজেলা সম্পর্কে কিছু কিছু মন্তব্য করেন।
 এরপর তিনি বলেন ফেনীতে উন্নয়নের বন্যা বয়ে যাচ্ছে যারা বলেন তাদের প্রশ্ন করেন। ফেনীর গুদাম কোয়াটারের রেল গেটের উপরে ওভার ব্রিজটি কেন করা হচ্ছে না? তিনি জানতে চান জহির রায়হান হলটি কেন ভাঙ্গা হলো? শহরের কেন্দ্রস্থলে কেনই বা হলটি নির্মান করা হচ্ছে না? তিনি বুঝতে পারেন না। এইটার পেছনে ষড়যন্ত্র আছে বলে তিনি মনে করেন।

এরপর দাগণভূঁইয়ায় দুই তিন আগে এক পাগলী একটি শিশুর জন্ম দিয়েছে। শিশুটি ফুটফুটে সুন্দর এবং দেখলেই বুঝা যায় শিশুটি কোন সম্ভান্ত লোকের। পাগলীটি দিনের বেলায় মানুষের উচ্ছৃষ্ট খেয়ে জীবন ধারণ করে। রাতের বেলায় কারো দোকানের বারান্দায় ঘুমায়। পাগলীর এই বাচ্চাটিকে দেখতে চতুরদিক থেকে লোকেরা ভিড় করতে থাকে। এক সময় ভিড়ের মধ্য থেকে হঠাৎ একজন বলে উঠে আরে এটা তো একেবারে ভাইস চেয়ারম্যান মামুনের চেয়ারা। চতুরদিকে রোটে গেল পাগলীর ঘরে মামুনের বাচ্চা। এবার ভিড় আরো বাড়তে লাগলো। বিষয়টি নিয়ে পুরো দাগণভূঁইয়াতে তোলপার চলছে। হাজারী এই বিষয়য়ে তদন্ত করার জন্য উপজেলা চেয়ারম্যান দিদারকে অনুরোধ করেছেন। এ বিষয়ের একটি পরিষ্কার চিত্র জনসম্মুখে আসা প্রয়োজন।
 সব শেষে হাজারী জীবনানন্দ দাশের একটি কবিতার কয়েক লাইন আবৃত্তি করে তার বক্তব্য শেষ করেন।



সম্পাদক : জয়নাল হাজারী।  ফোন : ০২-৯১২২৬৪৯
মোঃ ইব্রাহিম পাটোয়ারী কর্তৃক ফ্যাট নং- এস-১, জেএমসি টাওয়ার, বাড়ি নং-১৮, রোড নং-১৩ (নতুন), সোবহানবাগ, ধানমন্ডি, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
এবং সিটি প্রেস, ইত্তেফাক ভবন, ১/আর কে মিশন রোড, ঢাকা-১২০৩ থেকে মুদ্রিত।
আবু রায়হান (বার্তা সম্পাদক) মোবাইল : ০১৯৬০৪৯৫৯৭০ মোবাইল : ০১৯২৮-১৯১২৯১। মো: জসিম উদ্দিন (চীফ রিপোর্টার) মোবাইল : ০১৭২৪১২৭৫১৬।
বার্তা বিভাগ: ৯১২২৪৬৯, বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন: ০১৯৭৬৭০৯৯৭০ ই-মেইল : [email protected], Web : www.hazarikapratidin.com
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি