রবিবার, ১৯ নভেম্বর, ২০১৭
সম্রাট সুস্থ, আরিফদের কি হবে?
Published : Wednesday, 15 November, 2017 at 8:54 PM, Update: 14.11.2017 10:56:14 PM

সম্রাট সুস্থ, আরিফদের কি হবে?রেজওয়ান মাহমুদ॥
ঢাকা মহানগরের দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি গুরুতর অসুস্থ হয়ে চিকিৎসার জন্য সিংঙ্গাপুরে গিয়েছিলেন। চতুরদিকে প্রচার হয়েছিল সম্রাট আর জীবিত ফিরবে  না। কেউ বলেছে লিভার ড্যামেজ কেউ বলেছে হার্টের সমস্যা। কারো কারো মতে ক্যান্সার। সম্রাট আগেও চিকিৎসার জন্য কয়েকবার সিংঙ্গাপুর গিয়েছিল। কিন্তু এবার তাকে জরুরি চিকিৎসার জন্য নেয়া হয়েছিল।
কয়েকদিন আসলেই তার অবস্থা খারাপ ছিল কিন্তু এখন সে অনেকটাই সুস্থ। খবরে প্রকাশ আগামী সপ্তাহে দেশে ফিরবেন। শেখ সেলিম সম্রাটকে দেখার জন্য তড়িঘড়ি করে সিংঙ্গাপুর গিয়েছিলেন এতেও তার সংকটজনক অবস্থার কথা ছড়িয়ে পড়ে।
এদিকে তার মৃত্যু নিশ্চিত মনে করে দক্ষিণ যুবলীগের বেশ কিছু বিতর্কীত ব্যক্তি দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতির আসন পাওয়ার জন্য প্রতিযোগিতা শুরু করে দেয়। তারা ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে নেতাকর্মীদের সাথেও যোগাযোগ বাড়িয়ে দেয়। কেন্দ্রীয় চেয়ারম্যান ওমর ফারুকের সাথেও তদবিরের জন্য প্রতিযোগীতা শুরু করে।
ওমর ফারুক বুঝতে ছিল না হঠাৎ কিছু লোক তার সঙ্গে সকাল বিকেল কেন দেখা শুরু করেছে। গত ছয় মাস এক বছর যারা কোনদিন আসে নাই তাদের অনেকেই ওমর ফারুকের বাসার সামনে ঘুর ঘুর করতে দেখা গেছে। সম্রাট মারা গেলে যারা এই পদ পাওয়ার ব্যাপারে অগ্রগামী ছিল তাদের মধ্যে মিল্কি হত্যার আসামী আরিফ সবার উপরে ছিল। আরিফ মিল্কি হত্যার আসামী এবং সে বর্তমানে বিদেশে রয়েছে। পদটি দখল কতে পারলেই সে সঙ্গে সঙ্গে দেশে আসার পরিকল্পনা নিয়েছিল। একইভাবে যারা ঢাকাতেও তৎপর ছিল তারা  অনেকেই এ ব্যাপারে আশায় বুক বেধেছিল। কিছু মাঝারি ধরনের নেতা যারা এই পদটি চায় তারা কিন্তু তাদের মন বাসনা খুব একটা খোলসা করেনি এবং এমন অনেকে আছে যারা সম্রাটের গাঘেসে চলত তাদের কিছু লোকও সম্রাটের মৃত্যু কামণায় ছিল। ছাগলনাইয়ার   একটি ছেলে সম্রাটের সঙ্গে মালয়শিয়ায় গিয়েছিল। সম্রাট মালয়শিয়াতে আরো অসুস্থ হয়ে পড়লে তার অন্য সঙ্গীরা তাকে সিংঙ্গাপুর নিয়ে যায় কিন্তু সিংঙ্গাপুর না গিয়ে মালয়শিয়া থেকে দেশে ফিরে এসে প্রচার শুরু করে সম্রাট আর বাঁচবে না।

সুতরাং সম্রাটের মৃত্যু কামণা করত এই ।  দুই-এক বছর আগেও মগবাজারে সম্রাট বিরোধী যে চক্রটি ছিল তার সঙ্গেও ঘনিষ্ঠভাবে জড়িত ছিল। বর্তমানে কাউন্সিলর রতন সম্রাটের কঠিন প্রতিপক্ষ কিনা এটা সে কাউকে বুঝতে দেয়নি। তবে এক সময় এই রতন সম্রাটের কঠিন প্রতিপক্ষ ছিল। সম্রাট শক্তিতে অনেকটাই এগিয়ে গেলে রতন পিছিয়ে পড়ে। আগে রতন প্রকাশ্যেই সম্রাটের বিরোধীতা করত। এখন কাউন্সিলর হওয়ার পর থেকে প্রকাশ্যে বিরোধীতা করতে দেখা যায় না। সম্রাটের অসুস্থতায় এটা পরিষ্কার হয়েছে কারা তার পক্ষে কারা তার বিপক্ষে।

এক সময় সম্রাটের ঘনিষ্ঠ ধর্মপুরের বর্তমান চেয়ারম্যান সাখা ও তার গ্রুপ সম্রাটের উপর নাখোশ। কারণ সাখাকে বন্ধু পরিষদের সভাপতি না করে অন্য একজনকে সভাপতি করায় সাখা মনে মনে সম্রাট বিরোধী। ফেনী সমিতিতেও সম্রাটের নাম ভাংঙিয়ে যারা পদ দখল করেছে তাদের বিরোধীরাও সম্রাটের বিপক্ষে। যদিও এরা খুব একটা মুখ খুলছে না। এখন সম্রাট সুস্থ, আগামী সপ্তাহে দেশে ফিরবে তার জায়গায় যারা সভাপতি হতে চেয়েছিল তাদের কি হবে?




সম্পাদক : জয়নাল হাজারী। ফোন : ০২-৯১২২৬৪৯, ০১৭৫৬৯৩৮৩৩৮
মোঃ ইব্রাহিম পাটোয়ারী কর্তৃক ফ্যাট নং- এস-১, জেএমসি টাওয়ার, বাড়ি নং-১৮, রোড নং-১৩ (নতুন), সোবহানবাগ, ধানমন্ডি, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
এবং সিটি প্রেস, ইত্তেফাক ভবন, ১/আর কে মিশন রোড, ঢাকা-১২০৩ থেকে মুদ্রিত।
আইন উপদেষ্টা : এ্যাডভোকেট এম. সাইফুল আলম। আবু রায়হান (বার্তা সম্পাদক) মোবাইল : ০১৯৬০৪৯৫৯৭০ মোবাইল : ০১৯২৮-১৯১২৯১। মো: জসিম উদ্দিন (চীফ রিপোর্টার) মোবাইল : ০১৭২৪১২৭৫১৬।
বার্তা বিভাগ: ৯১২২৪৬৯, বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন: ০১৯৭৬৭০৯৯৭০ ই-মেইল : hazarikabd@gmail.com, Web : www.hazarikapratidin.com
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি