মঙ্গলবার, ২৪ অক্টোবর, ২০১৭
হাজারীর ফেইসবুক লাইভ ভাষণ: ১০ই অক্টোবর (ভিডিও সহ)
আপনারা মুখ খুলুন॥ আমি হাত খুলব
Published : Wednesday, 11 October, 2017 at 9:43 PM, Update: 12.10.2017 7:16:00 PM

আপনারা মুখ খুলুন॥ আমি হাত খুলবহাজারীকা ডেস্ক॥ ছালাম নিবেন। আমার বক্তব্যের শুরুতেই আমি আমার প্রিয় মানুষ কালা মিঞা ও এয়ার আহমেদ বাচ্চুর মৃত্যুতে সমবেদনা জ্ঞাপন করছি। আমি শুনেছি রোহিঙ্গাদের নোয়াখালিতে স্থানান্তরিত করা হবে। আমি এর বিরোধীতা করছি। রোহিঙ্গারা আরাকান রাজ্যের অধিবাসী। তাই আমি বলি আরাকানের যে অংশ এখন বাংলাদেশে, ওদেরকে সেখানেই রাখা হোক, নোয়াখালীতে নয়। ফেনী নদীর দক্ষিণ থেকেই আরাকান রাজ্য। সাম্প্রতিককালে তিনজনকে আমি ধন্যবাদ জানাব। প্রথমজন হচ্ছে সোহেল রানা নামে এক সরকারী কর্মকর্তা। এই কর্মকার্তা ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে ব্যাপক সফলতা দেখিয়েছেন। তিনি নজিরবিহীন দুঃসাহসিক অভিযান পরিচালনা করে শীর্ষ সন্ত্রীদের আস্তানায় আঘাত হেনেছেন। ওদের কেউ কেউ তাকে হুমকিও দিয়েছেন। পরে আবার দুঃখ প্রকাশ করেছেন । আমার সঙ্গে তার কোন যোগাযোগ নেই। আমি কোনদিন তাকে দেখিনি কোনদিন ফোনেও আলাপ হয়নি। তার ভূমিকা নজিরবিহীন। ইতিপূর্বে আর কেহ ফেনীতে এতো সাহস দেখিয়ে কেউ কাজ করেনি। সেজন্য তাকে আমি আন্তরিক অভিনন্দন জানাই। এরপর রহমান বিকম- সপ্তাহখানেক আগে ফেনী কেন্দ্রীয় সমবায় ব্যাংকের সভায় আমার অবদানকে অকপটে স্বীকার করেছে। বিলম্বে হলেও সাহস করে সত্য কথাটি বলেছে। এবার আমি ধন্যবাদ জানাব আলাউদ্দিন নাসিমের ছোটভাই পাপ্পুকে- পাপ্পু ফেনী জেলা আ.লীগের ডেকরাম নিয়ে ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছে। সেখানে সে বলেছে ফেনী জেলায় কোথাও কেউ কোন ডেকরাম মানছে না। এ ব্যাপারে সে ক্ষোভ ও দুঃখপ্রকাশ করেছে। তার কথাগুলো অত্যন্ত সঠিক ও সুন্দর ছিল। কিন্তু ডেকরাম ভঙ্গ তো তোমরাই করেছ। ফেনীমুক্ত দিবসে মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা সভায় আলাউদ্দিন  নাসিম প্রধান অতিথি অন্যদিকে চার এমপি বিশেষ অতিথি । এর চাইতে বড় ডেকরাম ভঙ্গ আর কি হতে পারে। এ ব্যাপারে আমি আমার আগের ভাষণে কঠোর ভাষায় জেলা প্রশাসকের নিন্দা করেছিলাম। বলা হচ্ছে সেই জন্যই ফেনীতে আমার পত্রিকা ঢুকতে দেয়া হচ্ছে না। তবুও আমি পাপ্পুকে ধন্যবাদ জানাব বিলম্ভে হলেও সে বড় একটি সমস্যা উপলব্ধি করতে পেরেছে। বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা গেছে এ বছরের মধ্যেই একরাম হত্যা মামলা নিস্পত্তি হবে। যেভাবে সাক্ষ্যি হয়েছে তা অনেকেই ধারণা করছে একরাম হত্যার মামলা থেকে রাঘব বোয়ালরা বাঁচতে পারবে না । তাই তারা হাইকোর্ট থেকে স্থাগিত আদেশ নিতে চেয়েছিল কিন্তু সেন্ডিকেট নেতা তা বারণ করেছে সে বলেছে সমস্যা কিছু নাই সব ঠিকঠাক আছে। সুতরাং এই মামলাটির ভাগ্যে কি আছে ফেনীবাসী তাই দেখতে চায়। আজ ও একরাম হত্যা মামলার তিন আসামিকে জামিন দেয়া হয়েছে। বিচারকাজ শুরু হলে জামিন দেয়া হয় না বরং জামিন বাতিল হয়। কিন্তু এই ক্ষেত্রে তার উল্টোটা কেন হল এটা পরিষ্কা নয়। আপাতত নিজামের মামলার ব্যাপারে কোন মন্তব্য করব না। শুধু জানিয়ে দিতে চাই ২৩ই অক্টোবর পরবর্তী দিন ধার্য করা হয়েছে। শুনেছি নিজাম পক্ষ কোর্টকে জানিয়েছে সে দেশে নেই এবং ক্যান্সার আক্রান্ত বউকে নিয়ে বিদেশে আছে কিন্তু বিবাদীর কোন প্রয়োজন আদালতে আছে বলে প্রতিয়মান হয় না। যাইহোক এর বেশি আমি বলতে চাই না। সেন্ডিকেট নেতা ফেনীতে কিছু কিছু অভিনব কাজ করে থাকে যা ফেনীবাসীকে লজ্জিত করে। যেমন সে তার বউয়ের রোগমুক্তির জন্য পুরো জেলায় যুবলীগ ক্যাডারদের লেলিয়ে দিয়েছে। যুবলীগের উদ্যেগে বিভিন্ন জায়গায় দোয়া মাহফিলের আয়োজন করেছে বাংলাদেশের ইতিহাসে কেউ কোনদিন শোনেনাই। সে নিজেই সমগ্র দেশবাসীর কাছে দোয়া চাইতেই পারে কিন্তু চোর ডাকাত মাদকখোররা দোয়া চাইলে জিনিসটা ভাল দেখায় না। কেউ বলছে তার বউয়ের মেরুদণ্ড ক্ষয় হয়েছে। কেউ বলছে টেষ্ট টিউবে বাচ্চা নেবে এখন বলা হচ্ছে ক্যান্সারে আক্রান্ত। আমু ভাইয়ের স্ত্রী ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে তিন বছর সিঙ্গাপুরে চিকিৎসাধীন ছিলেন। আমু ভাইও স্ত্রীর সঙ্গেই পড়েছিলেন। তিনি দেশবাসীর কাছে বিভিন্ন সময় দোয়া চেয়েছেন কিন্তু দলীয় কাউকে আলাদা করে দোয়া চাইতে বলেন নাই। বর্তমানে সৌয়দ আশারাফের স্ত্রী সংকটাপন্ন অবস্থায় আছেন তিনিও সকলের কাছে দোয়া চেয়েছেন দলকে ব্যবহার করেন নাই। এদিকে নিজামের মা কয়েক বছর ধরেই রোগাক্রান্ত হয়ে সজ্জাশায়ী আছেন অথচ তার মায়ের জন্য দোয়া করতে কাউকে বলেন নাই। অপর ঘটনাটি হচ্ছে গতমাসের শেষদিকে প্রশাসনের সকলস্তরের সকলকে জানান দিয়েই আমার মা-বাবার কবর জিয়ারতের জন্য ফেনী যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। এ খবর সেন্ডিকেটরা শুনেই সেদিন থেকেই আমার বাড়ি যাওয়ার পথে সশস্ত্র পাহারা বসিয়েছে। আমার ঘরে ঢুকার পথে কানন সিনেমার সামনে এবং শিশু পার্কের কাছে পালাক্রমো দিনরাত ওরা পাহারা দিচ্ছে। পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে আইনশৃঙ্গলা বাহিনীর একটি শাখা আমাকে ফেনী যাওয়া থেকে বিরত থাকার জন্য অনুরোধ জানালে আমি আমার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করি । আমার প্রশ্ন হচ্ছে আমি একজন মুক্তিযোদ্ধা, তিনবারের এমপি, কেন আমি আমার বাড়িতে যেতে পারব না? সেন্ডিকেটের এই জঘন্য কর্মকান্ডের বিচার চাই ফেনীর জনগণের কাছে। আমি গেলেই যদি ওদের গণেশ উল্টে যায় এবং তাদের অপকর্ম সব ছিন্নভিন্ন হয়ে যায় তাহলে তাদের কোনকিছুর নেতৃত্বে থাকার অধিকার আছে কিনা তা ফেনীর জনগনই বিবেচনা করবে। জোর করে অবৈধভাবে ফেনীকে দখল রাখা এই শক্তি আমার ভয়ে কম্পোমান । একজন ব্যক্তির ভয়ে যদি তারা দিশেহারা হয়ে যায়, যখন সমগ্র জনগোষ্ঠী বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেবে তখন তাদের কি হবে ? এই প্রসঙ্গে ফেনীর জনগণকে আমি শুধু একটি অনুরোধ করব, আপনারা শুধু মুখটা খুলুন, আমি হাত খুলব, ওরা পালাবে। সুবাষ বোস যেমন বলেছিলেন-
“আপনারা আমাকে রক্তদিন, আমি আপনাদের স্বাধীনতা দিব”। কয়েকদিন আগে সেন্ডিকেট সমর্থীত বাহার হাজারীকে দিনে দুপুরে কে বা কাহারা মেরে রাস্তায় ফেলে রেখেছিল আবার আজই পারভেজ হাজারীকে টিউবওয়েল বসানোকে কেন্দ্র করে বকুলের ভাগনেরা অপদস্ত করে। এ সময়ে হাজার হাজার মানুষ জড়ো হয়েগিয়েছিল প্রশ্ন হচ্ছে, দণ্ডপ্রাপ্ত সেন্ডিকেট নেতার আমলে হাজারীদের এই দুরঅবস্থা কেন ? আমার আমলে কোন এক মাস্তান হাজারী বাড়ির একজনকে আহত করে ভারতে পালিয়ে গিয়েছিল সেখান থেকে তাকে ধরে এনে থানায় সোপর্ধ করেছিলাম। তবে হাজারীরা অন্যায় করলে কেউ কিছু বলতে পারবেনা তা আমি বলি না।  আজকে আমি একটু অসুস্থ,তাছাড়া ইন্টারনেটও সমস্যা করছে। তাই কথা বলতে স্বস্থিবোধ করছি না। এখানেই শেষ করতে চাই-  আপনারা আমার জন্য দোয়া করবেন।      “জয় বাংলা”






সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক : জয়নাল হাজারী। ফোন : ০২-৯১২২৬৪৯, ০১৭৫৬৯৩৮৩৩৮
মোঃ ইব্রাহিম পাটোয়ারী কর্তৃক ফ্যাট নং- এস-১, জেএমসি টাওয়ার, বাড়ি নং-১৮, রোড নং-১৩ (নতুন), সোবহানবাগ, ধানমন্ডি, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
এবং সিটি প্রেস, ইত্তেফাক ভবন, ১/আর কে মিশন রোড, ঢাকা-১২০৩ থেকে মুদ্রিত।
আইন উপদেষ্টা : এ্যাডভোকেট এম. সাইফুল আলম। আবু রায়হান (বার্তা সম্পাদক) মোবাইল : ০১৯৬০৪৯৫৯৭০ মোবাইল : ০১৯২৮-১৯১২৯১। মো: জসিম উদ্দিন (চীফ রিপোর্টার) মোবাইল : ০১৭২৪১২৭৫১৬।
বার্তা বিভাগ: ৯১২২৪৬৯, বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন: ০১৯৭৬৭০৯৯৭০ ই-মেইল : hazarikabd@gmail.com, Web : www.hazarikapratidin.com
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি