সোমবার, ২৩ অক্টোবর, ২০১৭
গাছে বেঁধে শিশু নির্যাতন অন্যতম হোতা মিরু গ্রেফতার
Published : Sunday, 13 August, 2017 at 9:37 PM

গাছে বেঁধে শিশু নির্যাতন অন্যতম হোতা মিরু গ্রেফতারকুষ্টিয়ার কুমারখালীর ছেঁউড়িয়ায় মোবাইল চুরির অপবাদে আম গাছের সাথে বেঁধে দুই শিশু নির্যাতনের অন্যতম হোতা মীর আক্কাস আলী মিরুকে (৪৫)  গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শনিবার ভোর রাতে পাবনা জেলার ঈশ্বরদী থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। জানাযায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শনিবার ভোরে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কুমারখালি থানার এস আই মিল্টন কুমার দেবদাস সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে পাশ্ববর্তী পাবনা জেলার ঈশ্বরদী উপজেলার মাঝদিয়া বড়পাড়া গ্রামে অভিযান চালিয়ে তার এক আত্মীয়ের বাসা থেকে মিরুকে গ্রেফতার করে।
ঘটনার দিন বুধবার রাতেই কুমারখালি থানা পুলিশ এ ঘটনার অপর দুই হোতা তানজিল ও তার শাশুড়ি রোকেয়া খাতুনকে গ্রেফতার করে। এ নিয়ে আলোচিত এ ঘটনার এজাহারভুক্ত তিন আসামিকেই পুলিশ গ্রেফতার করেছে। দুই শিশু নির্যাতনের ঘটনায় দায়ের করা মামলার বাদীকে মামলা তুলে নিতে এলাকার প্রভারশালীরা হুমকি দিচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। মামলার বাদী রব্বেল ও গোপনে নির্যাতনের ভিডিও ধারণ করা স্থানীয় যুবক আশরাফুলসহ কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শীকে হুমকি দেয়া হচ্ছে বলে তারা অভিযোগ করেছেন।
এদিকে নির্যাতনের শিকার শিশু জুয়েল বৃহস্পতিবার রাত থেকে প্রচণ্ড জ্বরে ভুগছে। মামলার বাদী ও স্থানীয়দের হুমকি দেয়ার ঘটনায় কুমারখালী থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল খালেক ঘটনাস্থলে গিয়ে খোঁজ-খবর নিয়েছেন।
কুমারখালি থানার ওসি আব্দুল খালেক জানান, শিশু নির্যাতনের বিষয়টি অত্যন্ত স্পর্শকাতর। যে কারণে বিষয়টি অত্যাধিক গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। তিনি জানান, গ্রেফতার হওয়া এজাহারভুক্ত তিন আসামির পুলিশের পক্ষ থেকে রিমান্ড চাওয়া হবে।
কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মো. জহির রায়হান জানান, নির্যাতিত শিশু ও তার পরিবারকে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব রকম সহায়তা দেওয়া হবে। ইতোমধ্যেই অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোস্তাক আহমেদ ও সমাজসেবা অধিদপ্তরের ডিডি রোকসানা পারভিন নির্যাতিত শিশু জুয়েলকে দেখতে তার বাড়িতে গেছেন এবং পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা বলেছেন।
বুধবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার ছেঁউড়িয়ার চরমন্ডলপাড়া গ্রামে নির্মম এই শিশু নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় কুষ্টিয়া জুড়ে তোলপাড় চলছে। পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত তিনজনকেই গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শী ও দুই শিশুর পরিবার সূত্র জানায়, ৪-৫ দিন আগে কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার ছেঁউড়িয়ার চরমন্ডলপাড়া এলাকার রূপালী নামে এক নারীর মোবাইল ফোন চুরি হয়। ওই ঘটনায় তারা একই এলাকার ৭ বছরের এতিম শিশু জুয়েল ও আসিফকে সন্দেহ করে। বুধবার বিকেলে একই এলাকার প্রভাবশালী তানজিল ও মীর আক্কাস ওরফে মিরু তাদের বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে তানজিলের শ্বশুর বাড়ির সামনে আমগাছের সাথে বেঁধে দুই শিশুকে লাঠি দিয়ে বেধড়ক মারপিট করে।
শিশু দুটি মোবাইল চুরির কথা অস্বীকার করলেও তাদেরকে মারপিট করা হয়। পরে শিশু আসিফের পরিবারের সদস্যদের কাছ থেকে দুই হাজার টাকা নিয়ে আসিফকে ছেড়ে দেয় তারা। বেধড়ক মারপিটে কারণে শিশু জুয়েল গুরুতর আহত হয়ে পড়লে সন্ধ্যায় তাকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কুমারখালী থানা পুলিশ এ ঘটনার অন্যতম হোতা ছেঁউড়িয়ার চর মন্ডলপাড়ার তানজিল ও তার শাশুড়ি রোকেয়া খাতুনকে বুধবার রাতেই গ্রেফতার করে।
নির্যাতিত শিশু জুয়েল চর মন্ডলপাড়া গ্রামের সিরাজুলের ছেলে এবং আসিফ একই এলাকার নিশানের ছেলে।  নির্যাতিত শিশু জুয়েলের বড় ভাই রবজেল খান বাদী হয়ে কুমারখালী থানায় এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার তানজিল, শাশুড়ি রোকেয়া খাতুন ও মীর আক্কাস আলী ওরফে মিরুকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেছেন।


সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক : জয়নাল হাজারী। ফোন : ০২-৯১২২৬৪৯, ০১৭৫৬৯৩৮৩৩৮
মোঃ ইব্রাহিম পাটোয়ারী কর্তৃক ফ্যাট নং- এস-১, জেএমসি টাওয়ার, বাড়ি নং-১৮, রোড নং-১৩ (নতুন), সোবহানবাগ, ধানমন্ডি, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
এবং সিটি প্রেস, ইত্তেফাক ভবন, ১/আর কে মিশন রোড, ঢাকা-১২০৩ থেকে মুদ্রিত।
আইন উপদেষ্টা : এ্যাডভোকেট এম. সাইফুল আলম। আবু রায়হান (বার্তা সম্পাদক) মোবাইল : ০১৯৬০৪৯৫৯৭০ মোবাইল : ০১৯২৮-১৯১২৯১। মো: জসিম উদ্দিন (চীফ রিপোর্টার) মোবাইল : ০১৭২৪১২৭৫১৬।
বার্তা বিভাগ: ৯১২২৪৬৯, বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন: ০১৯৭৬৭০৯৯৭০ ই-মেইল : hazarikabd@gmail.com, Web : www.hazarikapratidin.com
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি