মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৭
সুপ্রিম কোর্টে ঝুলছে নওয়াজের ভাগ্য
Published : Monday, 17 July, 2017 at 8:42 PM

সুপ্রিম কোর্টে ঝুলছে নওয়াজের ভাগ্যআন্তর্জাতিক ডেস্ক ॥
পানামা পেপারস কেলেঙ্কারির অভিযোগে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের ভাগ্য এখন চিকন সুতোর ওপর ঝুলছে। আগামী শুক্রবার সুপ্রিম কোর্ট তার চূড়ান্ত ভাগ্য নির্ধারণ করবেন। দুর্নীতিতে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ তুলে বারবারই বিরোধী দলগুলো চাপ দিয়ে আসছে। এই চাপের মধ্যেই সুপ্রিম কোর্টের তৈরি যৌথ তদন্ত কমিটি জেআইটির দাখিল করা প্রতিবেদন নিয়ে আদালত আজ সোমবার দ্বিতীয় দফা শুনানিতে বসছেন। গত শনিবার ওই প্রতিবেদন নিয়ে প্রথম দফা শুনানি হয়। এদিকে দেশটির সেনাবাহিনী সরাসরি না হলেও পরোক্ষভাবে আভাস দিয়েছে, তারা বরাবরই দেশটির জনগণ ও গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোর পাশে ছিল এবং থাকবে। তো নওয়াজের জন্য সুপ্রিম কোর্টে লড়াই করা ছাড়া পানামা পেপারস কেলেঙ্কারির অভিযোগ থেকে মুক্তির দ্বিতীয় কোনো সুযোগ দৃশ্যত এখন আর নেই। এই জটিল পরিস্থিতির মধ্যে নওয়াজ ও তার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে পুরনো ১৫টি মামলা সচল করার আহ্বান জানিয়েছে জেটিআই। রাজনৈতিক মহলের ধারণা, আগামী শুক্রবার সুপ্রিম কোর্ট নওয়াজ শরিফকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে অযোগ্য ঘোষণা করার প্রবল আশঙ্কা রয়েছে। এমন হলে তিনি আর প্রধানমন্ত্রী থাকতে পারবেন না। নওয়াজের সম্ভাব্য ভাগ্য বিপর্যয়ের আশঙ্কায় ভারত এবং চীনও শঙ্কিত। খবর ডন, এনবিসি ও হিন্দুস্তান টাইমসের।
পানামাগেট কেলেঙ্কারিতে জেআইটি রিপোর্ট জমা দেওয়ার পরই নওয়াজের ভাগ্য আরও ঘোলাটে হয়ে পড়েছে। ওই রিপোর্টে বলা হয়েছে, জ্ঞাত আয়ের অতিরিক্ত সম্পদের মালিক নওয়াজ শরিফ ও তার পরিবারের সদস্যরা। এ ক্ষেত্রে অসদুপায় অবলম্বন করা হয়েছে। ফলে সুপ্রিম কোর্ট যদি শুক্রবার তাকে অযোগ্য ঘোষণা করেন, তাহলে এক অনিশ্চয়তা ভর করবে পাকিস্তানের রাজনীতিতে। ঠিক এমন সময়ে সংযুক্ত আরব আমিরাতের ভাইস প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ বিন রশিদ আল মাকতুমের সঙ্গে জরুরি টেলিফোন যোগাযোগের চেষ্টা করছেন নওয়াজ শরিফ। এমন এক সময়ে নওয়াজ এ চেষ্টা করছেন, যখন পানামা পেপারস কেলেঙ্কারিতে হাবুডুবু খাচ্ছেন।
জেআইটির রিপোর্টে দেখা যায়, ১৯৯৯ সালের ন্যাশনাল অ্যাকাউন্টেবিলিটি ব্যুরো (এনএবি) অর্ডিন্যান্সের ৯ নম্বর ধারা লঙ্ঘন করেছেন নওয়াজ, তার দুই ছেলে হাসান নওয়াজ ও হোসেন নওয়াজ, মেয়ে মরিয়ম নওয়াজ। তাদের ঘোষিত আয়ের উৎস ও সম্পদের মধ্যে বিস্তর ফারাক পাওয়া গেছে। এদিকে এরই মধ্যে জেআইটি তদন্তের স্বার্থে নতুন করে ১৫টি মামলা সচল করতে বলেছে।
 এর মধ্যে লাহোর হাইকোর্টের ৫টি মামলা, ৮টি তদন্ত এবং নওয়াজের বিরুদ্ধে দুটি তদন্ত রয়েছে। লন্ডন অ্যাপার্টমেন্টের চারটি ফ্ল্যাটের মালিকানা ও উৎস, গালফ স্টিল মিল, কাতারি লেটার এবং অফশোর কোম্পানির সঙ্গে শরিফ পরিবারের সংশ্লিষ্টতা অনুসন্ধান করছে জেটিআই।
একই সঙ্গে নওয়াজের পদত্যাগ দাবিতে ক্ষমতাসীন দলের ওপর তীব্র চাপ সৃষ্টি করেছে বিরোধী দলগুলো। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী এমন দাবিতে মাথানত করবেন না বলে দৃঢ়তার সঙ্গে জানিয়ে দিয়েছেন। তার ওপর সেনাবাহিনীর হাইকমান্ড আবারও আভাস দিয়েছে, তারা দেশের আইনি প্রতিষ্ঠান এবং সাধারণ জনগণের পাশেই থাকবে। সেনাবাহিনীর এই বার্তা স্পষ্ট করে দিয়েছে, নওয়াজ শরিফ একা হয়ে পড়েছেন। সুপ্রিম কোর্টের মামলার মুখোমুখি হওয়ার বিকল্প এখন আর হাতে নেই। নওয়াজের দলেও এখন এ ইস্যুতে এমপি-মন্ত্রীরা বিভক্ত হয়ে পড়েছেন। গুজব চলছে, নওয়াজের পাশে থাকা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী চৌধুরী নিসার আলি খানও এখন হতাশ। তিনি মন্তব্য করেছেন, 'একমাত্র অলৌকিক শক্তিই এখন নওয়াজকে রক্ষা করতে পারে।'






সম্পাদক : জয়নাল হাজারী। ফোন : ০২-৯১২২৬৪৯, ০১৭৫৬৯৩৮৩৩৮
মোঃ ইব্রাহিম পাটোয়ারী কর্তৃক ফ্যাট নং- এস-১, জেএমসি টাওয়ার, বাড়ি নং-১৮, রোড নং-১৩ (নতুন), সোবহানবাগ, ধানমন্ডি, ঢাকা থেকে প্রকাশিত
এবং সিটি প্রেস, ইত্তেফাক ভবন, ১/আর কে মিশন রোড, ঢাকা-১২০৩ থেকে মুদ্রিত।
আইন উপদেষ্টা : এ্যাডভোকেট এম. সাইফুল আলম। আবু রায়হান (বার্তা সম্পাদক) মোবাইল : ০১৯৬০৪৯৫৯৭০ মোবাইল : ০১৯২৮-১৯১২৯১। মো: জসিম উদ্দিন (চীফ রিপোর্টার) মোবাইল : ০১৭২৪১২৭৫১৬।
বার্তা বিভাগ: ৯১২২৪৬৯, বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন: ০১৯৭৬৭০৯৯৭০ ই-মেইল : hazarikabd@gmail.com, Web : www.hazarikapratidin.com
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি