বুধবার, ৩০ নভেম্বর, 2০২2
মারিওপোলের রাস্তায় রাস্তায় মৃতদেহের ছড়াছড়ি
Published : Monday, 21 March, 2022 at 4:13 PM

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ॥
রাশিয়ার সঙ্গে যুদ্ধে এখন পর্যন্ত ইউক্রেনের ক্ষয়ক্ষতির অন্ত নেই। দেশটির বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ শহর প্রায় রুশ সেনাদের দখলে। বিভিন্ন আশ্রয় কেন্দ্রে ঠাঁই বেসামরিকরাও লাগাতার হামলার শিকার হচ্ছেন। এমনকি ইউক্রেনের বিভিন্ন সামরিক ও জ্বালানি ঘাঁটিতেও হামলা চলছে। অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ শহর মারিওপোলের সড়কে এখন মৃতদেহের ছড়াছড়ি।

শনিবার ইউক্রেনে প্রথমবারের মতো হাইপারসনিক ক্ষ্যাপণাস্ত্র হামলা চালানোর পর আবারো এই হামলা চালিয়েছে রাশিয়া। দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রক দাবি করেছে, তারা ইউক্রেনকে কৃষ্ণ ও কাস্পিয়ান সাগরে জাহাজ থেকে ক্রুজ মিসাইল এবং ক্রিমিয়ান আকাশসীমা থেকে হাইপারসনিক মিসাইল দিয়ে আক্রমণ করেছে। বিশ্লেষকরা বলছেন, মস্কো ইউক্রেনের সামরিক সম্পদ লক্ষ্য করে ক্রুজ এবং হাইপারসনিক ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করার মাধ্যমে তাদের সামরিক আক্রমণকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে।

রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মেজর জেনারেল ইগর কোনাশেনকভ রবিবার বলেছেন, কিনঝাল (ড্যাগার) হাইপারসনিক ক্ষেপণাস্ত্রটি মাইকোলাইভের কৃষ্ণ সাগর বন্দরের কাছে কোস্তিয়ানতিনিভকায় ইউক্রেনের জ্বালানী ডিপোতে আঘাত করেছে। যুদ্ধে ক্ষতিগ্রস্ত ইউক্রেনীয় সাঁজোয়া যান মেরামত করার জন্যে কৃষ্ণ সাগরের জল কাজে লাগিয়ে তৈরি নিঝিন প্ল্যান্ট উদ্দেশ্য করে কালিবর ক্রুজ মিসাইলগুলি ছুঁড়া হয়েছিল। শব্দের ১০ গুণ গতিতে ২ হাজার কিলোমিটার দূরের লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত করতে সক্ষম এই কিনজল ক্ষ্যাপণাস্ত্র হামলা টানা দুাইদিন করা হয়েছিল।

কোনাশেনকভ অরো বলেছেন, আকাশ-চালিত আরেকটি ক্ষেপণাস্ত্র আক্রমণ উত্তর জাইটোমির অঞ্চলের ওভরুচের একটি স্থাপনায় আঘাত হানে যেখানে বিদেশী যোদ্ধা এবং ইউক্রেনীয় বিশেষ বাহিনী ছিল। এর আগে রাশিয়ার সামরিক বাহিনী জানিয়েছিলো, পশ্চিম ইউক্রেনের কার্পাথিয়ান পর্বতমালার ডিলিয়াটিনে একটি গোলাবারুদ ডিপো ধ্বংস করার জন্য যুদ্ধে কিনজল প্রথমবার ব্যবহার করা হয়েছিল।

কামিকাজ ড্রোন

রাশিয়া তার উন্নত অস্ত্রের জন্য বরাবরই খুব গর্ব করে। ভ্লাদিমির পুতিন ডিসেম্বরে বলেছিলেন, রাশিয়া হাইপারসনিক ক্ষেপণাস্ত্রের বিশ্বব্যাপী নেতৃত্ব দেয়ার পর্যায়ে আছে। রাশিয়ার এসব অত্যাধুনিক ক্ষেপণাস্ত্রের গতি, চালচলন এবং উচ্চতা ট্র্যাক করা এবং আটকানো খুবই কঠিন। রাশিয়া ২০১৬ সালে সিরিয়ায় সামরিক অভিযানের সময় প্রথম হাইপারসনিক ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবহার করেছিল৷ তবে এই অত্যাধুনিক কিনঝাল ক্ষেপণাস্ত্রগুলি ২০১৬ সালে সিরিয়ায় ব্যবহৃত ক্ষেপণাস্ত্রের চেয়েও উন্নততর।

এর গতি এবং আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাকে অতিক্রম করার ক্ষমতার কারণে পুতিন কিনঝাল ক্ষেপণাস্ত্রকে একটি আদর্শ অস্ত্র বলে অভিহিত করে বলেন, ‘এটি পারমাণবিক ওয়ারহেড বহন করতে সক্ষম একটি ক্ষেপণাস্ত্র এবং পশ্চিমা বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা দ্বারা একে সহজেই ট্র্যাক করতে পারবে না। এটি একটি অপ্রতিরোধ্য ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র। কংগ্রেসের একটি রিপোর্ট অনুসারে, ২০০০-এর দশকের গোড়ার দিকে তার প্রচলিত প্রম্পট গ্লোবাল স্ট্রাইক প্রোগ্রামের অংশ হিসাবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সক্রিয়ভাবে হাইপারসনিক অস্ত্রের বিকাশের জন্য চেষ্টা করছে যা কমপক্ষে শব্দের চেয়ে ৫ গুণ গতিতে উড়ে।

জ্বালানি ও কারখানায় হামলা:


ইউক্রেন সেনাবাহিনীর জ্বালানি মজুতের একটি স্থাপনাকে লক্ষ্য করে হামলা চালিয়েছে রাশিয়ার সামরিক বাহিনী। রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে, ‘ইউক্রেনীয় বাহিনীর জন্য রাখা জ্বালানি তেলের একটি মজুত হাইপারসনিক ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র কিনঝালের হামলায় ধ্বংস হয়ে গেছে।’

রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে রয়টার্স জানিয়েছে, কৃষ্ণসাগর ও কাস্পিয়ান সাগরে থাকা যুদ্ধজাহাজ থেকে ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র হামলা আর ক্রিমিয়ার আকাশসীমা থেকে ইউক্রেনে হাইপারসনিক ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালাচ্ছে রাশিয়া। রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ইগোর কোনাশেঙ্কভ বলেন, ইউক্রেনের সামরিক স্থাপনায় শনিবার রাত এবং রবিবার সকালে হামলা চালিয়েছে রাশিয়া।

রবিবার দেশটির কর্মকর্তারা জানায়, মারিওপোল শহর অবরুদ্ধ করে রুশ বাহিনী রাখায় ইউরোপের বৃহত্তম লোহা ও ইস্পাত শিল্পের কারখানা, আজভস্টিল গুরুতর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ইউক্রেনের একজন আইনপ্রণেতা লেসিয়া ভ্যাসিলেনকো টুইটে বলেন, 'ইউরোপের সবচেয়ে বড় ধাতব কারখানা ধ্বংস হয়ে গেছে। এতে ইউক্রেনের অর্থনৈতিক ক্ষতি বিপুল এবং পরিবেশ বিপর্যস্ত।' তিনি ওই কারখানায় বিস্ফোরণের একটি ভিডিও পোস্ট করেছেন। সেখানে দেখা যায়, ভবনগুলো থেকে ধূসর ও কালো ধোঁয়ার ঘন স্তর উঠে আসছে।


সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
প্রতিষ্ঠাতা বীর মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল হাজারী।   ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: গোলাম কিবরীয়া হাজারী বিটু্।   প্রকাশক: মোঃ ইব্রাহিম পাটোয়ারী।
সহ সম্পাদক- রুবেল হাসান: ০১৮৩২৯৯২৪১২।  বার্তা সম্পাদক : জসীম উদ্দিন : ০১৭২৪১২৭৫১৬।  সার্কুলেশন ম্যানেজার : আরিফ হোসেন জয়, মোবাইল ঃ ০১৮৪০০৯৮৫২১।  রিপোর্টার: ইফাত হোসেন চৌধুরী: ০১৬৭৭১৫০২৮৭।  রিপোর্টার: নাসির উদ্দিন হাজারী পিটু: ০১৯৭৮৭৬৯৭৪৭।  মফস্বল সম্পাদক: রাসেল: মোবা:০১৭১১০৩২২৪৭   প্রকাশক কর্তৃক ফ্ল্যাট নং- এস-১, জেএমসি টাওয়ার, বাড়ি নং-১৮, রোড নং-১৩ (নতুন), সোবহানবাগ, ধানমন্ডি, ঢাকা থেকে প্রকাশিত এবং সিটি প্রেস, ইত্তেফাক ভবন, ১/আর কে মিশন রোড, ঢাকা-১২০৩ থেকে মুদ্রিত।  বার্তা, বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন বিভাগ: ০২-৪১০২০০৬৪।  ই-মেইল : [email protected], web : www.hazarikapratidin.com
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি